কবি দশমিক পলাশ-এর “অক্ষরভূমি”-সাহিত্য পত্রিকার আনুষ্ঠানিক প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক:মাতৃপক্ষের সূচনা পর্বে মহালয়ার দিন পশ্চিমবঙ্গ বাংলা একাডেমির জীবনানন্দ সভাগৃহে চাঁদের হাট বসেছিলো। কবি দশমিক পলাশ (পলাশ পাল) এর সম্পাদনায় “অক্ষরভূমি”-আন্তর্জাতিক সাহিত্য পত্রিকার আনুষ্ঠানিক প্রকাশ ঘটে কবি ও শিশু সাহিত্যিক কার্তিক ঘোষ ও সাহিত্যিক পৃথ্বীরাজ সেন মহাশয়ের হাত দিয়ে।প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কবি প্রসূন ভৌমিক, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবী মৃদুল বিশ্বাস, রাজশঙ্কর পাণ্ডে,কুমুদ মেলার সম্পাদক মোল্লা জসিমউদ্দিন, কবি আনারুল ইসলাম প্রামানিক,ভারতীয় মানবাধিকার সংগঠনের রাজ্য সভাপতি মনোতোষ বেরা, কবি ও চলচ্চিত্র পরিচালক রাজকুমার দাসসহ বাউল শিল্পী স্বপন দত্ত, সমাজ সেবক শিবাজী দে প্রমুখরা।
পত্রিকার সম্পাদক কবি দশমিক পলাশ জানান সাহিত্যের মাঝে সকল গুণীজন দের একত্রে করে এক মেলবন্ধন তৈরী করার চেষ্টা করেছি।যেন আমরা সর্বদাই সাহিত্য চর্চা করে সমাজের জন্য কিছু করতে পারি।ডিজিটাল যুগে এখনও বেশির ভাগ মানুষ ছাপা পাঠ্য পুস্তক আকারে যেকোনো বই পড়তে ভালোবাসে বলে তিনি মনে করেন। “অক্ষরভূমি” পুরস্কার-2022 তুলে দেওয়া হয় সুদামকৃষ্ণ মন্ডল এর হাতে।এইদিনের মঞ্চে অতিথি সহ গুণীজনদের সংবর্ধনা জানানোর পাশাপাশি স্বরচিত কবিতা পাঠ ,গান,আবৃত্তি ও শ্রুতি নাটক পরিবেশিত হয়।বাংলার নানান প্রান্ত থেকে কবি, সাহিত্যিক,সাহিত্যপ্রেমী মানুষ উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠানটি সফল করে তোলেন।সকলের হাতে স্মারক তুলে দেন যোগ্য গুণীজন সাহিত্য সেবকেরা।

ছোটদের কবিতা, ছড়া শিশুদের মুখে সোনা যায় অনুষ্ঠানে।মাস্টার ঋক দাস,সৌনাক সহ অন্যান্য ক্ষুদেদের মিষ্টি কবিতা পরিবেশন সকলকে মুগ্ধ করে। প্রেক্ষাগৃহে ভর্তি ছিল দর্শকাশন,পাশাপাশি জমজমাট হয়ে ওঠে সকলের অংশগ্রহণ করা এই সুচারু অনুষ্ঠান।কবি ও কবিতা এই ভাবে বেঁচে থাকুক তার নিজস্বতা নিয়ে।যেখানে সারস্বত সাধনায় আমরা প্রতিটি মুহুর্ত যেন নিজেদের এইভাবে নিয়োজিত করে রাখতে পারি।

“অক্ষরভূমি “-আগামী দিনে এই সুচারু প্রয়াসকে এগিয়ে নিয়ে যাক,শুভেচ্ছা রইলো।